এক যে ছিল সার্জিও!

যে কয়জন কুশলী নির্মাতা মার্কিন সংস্কৃতির উপভাষাগুলোর জুতসই ব্যবহারে নতুন ধারায় স্নাত করেছেন ছায়া ও ছবির নীপবন এবং আচ্ছন্ন করেছেন দর্শকদের, তাদের মধ্যে অন্যতম সার্জিও লেওন।

ইতালীয় এই চিত্রনির্মাতা তাঁর অসাধারণ দক্ষতা দিয়ে ইতিহাস, স্মৃতি এবং সাংস্কৃতিক পুরাণের চোরাগলি থেকে তুলে আনা উপকরণের নিজস্ব মিশেলে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনেন ওয়েস্টার্ন ও গ্যাংস্টার সিনেমার প্রচলিত ধারণায়। যদিও তিনি ছবি বানিয়েছেন মোটে সাতটি, তবুও তার জাঁকালো হস্তশৈলীর বরাতে মার্কিন মুলুক তো বটেই; বিশ্ব সিনেমার ওপরেও তাঁর প্রভাব রয়েছে ভীষণ।

লেওন চলচ্চিত্রের প্রশস্ত পর্দায় সিনেমা, পপ কালচার, ইতিহাস ও ধর্মকে বিদ্রূপাত্মক ঋজুতার ক্ষুরে ফালাফালা করে দুর্দান্ত এক কোলাজ ড্রইং রচনা করেছেন। টারেন্টিনো-স্করসিস থেকে শুরু করে কুস্তেরিকা, মাইকি ও জন উ-এর মতো নির্মাতারাও লেওনকে উদ্ধৃত করে থাকেন চোখ বুজে।

সার্জিও লেওনের জন্ম, বেড়ে ওঠা সব কিন্তু সিনেমার মধ্যেই! বাবা ছিলেন ইতালীয় সিনেমার আরেক পথিকৃৎ ভিন্সেঞ্জো লেওন এবং নির্বাক সিনেমার তারকা শিল্পী বিসে ভ্যালেরিয়ান লেওনের মা। পড়ন্ত কৈশোরে লেওন শিক্ষানবিস সহকারী পরিচালক হিসেবে পা রাখলেন ফিল্মি দুনিয়ায়। এই সময়ে তিনি ইতালিতে কর্মরত বিস্তর স্বদেশি ও মার্কিন পরিচালকদের সঙ্গে নিয়োজিত ছিলেন। শুরুতে বেশ কয়জন নব্য-বাস্তববাদী নির্মাতার সঙ্গে কাজ করেন তিনি। লেওনের সহকারী আমলের কাজগুলোর মধ্যে ভিত্তরিও ডি সিকার ‘বাইসাইকেল থিফ’ উল্লেখযোগ্য।

পরিচালনার জগতে তার সাচ্চা সূত্রপাত হয় রোমান সাম্রাজ্যের ওপর মার্কিন আক্রমণের ক্ষণে, ক্যালেন্ডারের ভাষায় পঞ্চাশের দশকে; যখন কি না ইতালির সিনেসিত্তা আর মার্কিন স্টুডিওগুলোর পারস্পরিক বাণিজ্যের সম্প্রসারণ ঘটছে এবং ইতালিতে (লেওনের প্রিয়) রবার্ট অল্ড্রিচ, রাউল ওয়ালশের মতো কেউকেটা পরিচালকরা ধুমসে কাজ করছেন।

‘ফর্মুলা ফিল্ম’ বলে বাতিলের তকমা আঁটা প্রথম পরিচালিত ছবি ‘দ্য কলোসেস অব রোডস’ (১৯৬১) দিয়েই মূলত লেওন ঘোষণা দেন তাঁর বহু দূরবর্তী সুদূর অতীত সংলগ্নতার।

তিনি ‘ওয়ান্স আপন এ টাইম’ সিরিজের সিনেমায় দেশের মানচিত্র পুরাণ ও কিংবদন্তি, জনপ্রিয় লোককথার শ্রুতির মধ্য দিয়ে কল্পনার চেয়ে ব্যক্তিগত স্মরণ-বিস্মরণের বিচিত্র কালি দিয়ে রচনা করেছেন। যদিও আমরা তাঁর অতীত অন্বেষণ নেশা ক্রমেই ব্যক্তিগত থেকে ব্যক্তিগততর রূপে ঘনিয়ে উঠতে দেখি। ‘ওয়ান্স আপন এ টাইম ইন আমেরিকা’-এর ফ্ল্যাশব্যাক অববাহিত ছিন্নভিন্ন দৃশ্যের অভিন্ন আখ্যানের চলমান চিত্রে। লেওন সব সময় ঐতিহাসিক অতীতকে ‘ফ্যান্টাসি’ বা ‘খোশখেয়ালের দুনিয়া’ হিসেবে দেখিয়েছেন এবং বড় পর্দায় মন্ত্রমুগ্ধ করে দর্শকদের তিনি শুনিয়ে গেছেন অবাস্তব, অদ্ভুত এক পৃথিবীর প্রামাণ্য গল্প।

সার্জিও লেওনের সিনেমা নির্মাণ কৌশল যথেষ্ট বৈচিত্র্যময় এবং অধিকাংশই তার নিজস্ব উদ্ভাবন। এক্সট্রিম ক্লোজআপের পাশাপাশি সুদীর্ঘ লং শটের ব্যবহার, টেকনিস্কোপিক ইমেজ, অসাধারণ ডেপথ অব ফিল্ড, ডুয়েল লড়াইয়ের প্রলম্বিত আয়োজন-ডিটেইলসের চুলচেরা পর্যবেক্ষণ এক-আধ সংলাপের মধ্য দিয়ে সময়ের প্রসারণ, এন্নিও মোরাচিনির আবহ সংগীতের অমায়িক ব্যবহার, শান্ত অথচ মেজাজি কথোপকথন, উন্নত সাউন্ড ইফেক্ট, যারপরনাই হিংস্র দৃশ্যে অধিকাংশ সময় স্লো-মোশন ইফেক্টের কাব্যিক ব্যবহার_এসবই লেওনের ট্রেডমার্ক। লেওনের সিনেমা সাধারণ দর্শকের জন্য যেমন মুগ্ধতার অনন্য আয়োজন, তেমনি নির্মাতাদের জন্য অনুকরণীয় কৌশলের বিরাট ভাণ্ডার।

‘এ ফিস্টফুল অব ডলারস’, ‘ফিউ ডলারস মোর’ এবং ‘দ্য গুড, দ্য ব্যাড অ্যান্ড দ্য আগি্ল’-এর মধ্য দিয়ে সার্জিও লেওন জনপ্রিয় স্প্যাগেটি ওয়েস্টার্ন ধারাকে একটা পোক্ত আসন করে দেন, যা একই সঙ্গে সংশয়াপন্ন সিনেসিত্তার ধড়ে এবং হলিউডের বহু ম্রিয়মাণ মারকুটে তারকার জীবনে নতুন প্রাণের আন্দোলন ঘটায়।

সমসাময়িক নির্বোধ সমালোচকরা এই ধারার ভীষণ লোকপ্রিয়তা, শিল্পসম্মত বুনন সম্পর্কে যতই সন্দিহান হোক না কেন, নিঃসন্দেহে বলা যায় লেওনের ওয়েস্টার্ন ঘরানা যুদ্ধ-পরবর্তী ইতালীয় সিনেমায় নয়া-বাস্তববাদের পর অন্যতম সেরা মৌলিক সংযোজন।

পূর্ণবয়স্ক লেওন ‘ফ্যান্টাসি পুরাণ’-এর পরিপ্রেক্ষিত থেকে সিনেমা দেখার আশৈশব আবেগকে আন্তরিকতার সঙ্গে বয়ে বেড়িয়েছেন আমৃত্যু।

জাপানি নির্মাতা আকিরা কুরশাওয়ার থেকে কপি মাস্টার লেওনের শিহরণ জাগানো প্রথাবিরোধী সিনেমাধারা তছনছ করে দিয়েছে প্রচলিত রচনাশৈলী, গল্প বলার ঢং, ঘরানার প্রচলের সীমানা আর তাতে পূর্বসূরি আল্ড্রিচ, বয়িতেচার, ফুলারের অতুলনীয় ভঙ্গিতে গল্প করার ছল মিশিয়ে লেওন তৈরি করেছেন এক অসম্ভব ঘোর, যা সময় খুঁড়ে দর্শকদের সামনে হাজির করে সত্যের মতো বদমাশ অতীতকে।

সূত্র : সার্জিও লেওনের সিনেমা, ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s