Lonely Day বাই সোআড~ তরজমা: ইমরান ফিরদাউস

ভূমিকা শিল্প-বিপ্লবের পরের দিন টা ক্যামন যেন ফ্যালেফ্যালে। গতকালও তো হাঙ্গামা ছিল, জোর-জবরদস্তি ছিল। টুইন টাওয়ার ছিল, আকাশ থেকে উড়ে আসা ছোট্ট একটা প্লেন ছিল। পথিক নবীর এক্টা নদী ছিল। কিন্তুক, নদীর নাম জিগানোর মতন কেউ ছিল না। এত ছিল্‌ ছিল্‌ ছিলা ছিল এর মধ্যে থাইকাও, একটা কী যেন থেমে ছিল। দাঁতের কোণায় ঝুলে থাকে, টুথপিকের নাগালের বাইরে থাকা খাদ্য-কণার মত। এইরকম দিনটারে মোনালিসা নাম দিল লোনলি ডে। তাজমহলের মত একা। পানির নিচে রাস্তা ভালোর মত তাজা। অবাধ নির্বাচনের মত সুষ্ঠু এক্টা দিন। এমন দিনে ফেরেশ্তাদের শহরে বসে ড্যারন মালাকিয়েন লিখে ফেলে লোনলি ডে  গানটা। গীতে সুরারোপ করেন সিস্টেম অফ আ ডাউনের মেম্বারবৃন্দ। রটনা আছে- মালাকিয়েন গানটা লিখেছিলো অগ্নিকাণ্ডে নাই হয়ে যাওয়া মায়ের পেটের ভাইয়ের বিগত স্মৃতির উপমায় । যে কারণে, গানের ছায়াছন্দে বার বার দেখা গিয়ে থাকবে আগুনের লেলিহান শিখা, জমাট বাঁধা কালো ধোঁয়া। সোআড এক অনমনীয় শ্রদ্ধা অর্জন করেছে দুষ্টু লোকের রাজনীতি, গুণহত্যা, যুদ্ধবাজ সরকার ও রাষ্ট্রনীতির কঠোর সমালোচক হিসেবে। এই গানের মধ্যেও তার অন্যথা ঘটে নাই। এই গানের মাআরেফতি বিন্দু টা হলো যে, ব্যক্তি মানুষ ভেদে এটি পুঁজিবাদ প্রযোজিত কিছু ভালো লাগে না‘র স্মারক হিসেবে কানে বাজতে৩ পারে, আবার প্রান্তিক মানুষের ঘাঁড়ে জোর করে গুঁজে দেওয়া দায়ের জের হিসেবেও শ্রবণ করা  যেতে পারে গানটা। আবেগী হার্ডকোর রক এর গীতবাদ্যের তোড়ায় বাঁধা, পোস্ট গ্রানজের লিরিক্যাল চরিত্র নিয়ে সৃজিত হওয়া- হার্ড রক ব্যালাডের এই গান বলে যায় নিঃসঙ্গ দিনের মত স্লো-পয়জনের জবানবন্দী। বলে- প্রিয় প্রিয়-এর হাত ধরে মৃত্যুর দিকে হেঁটে যাওয়ার বিষণ্নতার কথা, বলে উদ্বিগ্ন সত্ব্বার দেয়াল পিঠ ঠেকিয়ে লড়াইয়ের নির্মিলীত গল্প। ২০০৭ সনে আলো-বাতাস লাভ করা এ গানের প্রডিওসার ছিলেন ওস্তাদ লোক রিক রুবেন এবং আবারো ড্যারন মালাকিয়েন। যাইহোক, মনের চোরা পকেটে আলতো করে রাখা, মেনি বিড়ালের সঙ্গ–সুখ পাওয়া নিঃসঙ্গ দিনটারে সরকারী প্রেস্ক্রিপশনের হাহাকারে উদযাপন করবেন; নাকি সোম আর বৃহষ্পতিবারের মাঝখানে একটা অর্ধদিবস রূপে সোনা-লাল-সিস্টেমের সানডে-মানডে ক্লোজের উপলক্ষ হিসেবে সেলিব্রেট করবেন- সে রায় আপনার।।   নিদারুণ একলাটি বার বুক পকেট জুড়ে আমার এমন নিঃসঙ্গতম বার জিন্দেগি আর একটাও হয় না। এমন একলাটি বার নিষিদ্ধ করা উচিত এ এমনই একাকী বার যা বরদাশত করা জুলুম।। এমন একলাটি দিনের কোন কোন কারণ নেই।। এমন সব নিঃসঙ্গ দিনের স্মৃতি মনেও রাখতে চাই […]

Fix You বাই কোল্ডপ্লে ~ তরজমা: ইমরান ফিরদাউস

শানে নুযুল কোল্ড প্লে ২০০৪ সনে ফিক্স ইউ গানটি লানডানে বসে রেকর্ড করে এক্স অ্যান্ড ওয়াই গীতমালার জন্য। ২০০৫ সনে গীতটি প্রকাশিত হওয়ার পর আজতক শ্রোতাদের মাঝে ব্যান্ডের অন্যতম সিগ্নেচার গানরূপে পরিগণিত হয়ে আসছে। গুরু-গম্ভীর নাদের যাজকীয় পিয়ানোর সুর, বাতাসকে বিমর্ষ করে গেয়ে উঠা ক্রিস মার্টিনের ব্যথাতুর কন্ঠ আর সম্মিলিত প্রয়াসে লিখে ফেলা এই গানটি, রক ব্যালাড […]

কী কথা শব্দের সাথে ~ ইমরান ফিরদাউস

উপস্থিতির অনুপস্থিতি দেইখা ঘাবড়ায় গেছে অনুপস্থিতি পরীক্ষার পূর্ণমান দেইখা ঘাম ছুটতেছে সময়ের সিলেবাস বেঞ্চের কোণায় বইসা টুকে রাখতেছে আনসিন উপপাদ্য ঘন্টা কাঁপতেছে হাতুড়ির ভায়োলেন্সে ফ্যাকাশে বদনে কাগজ চায়া আছে কলমের দিকে আর কালো কলম অপেক্ষায় আছে গুটি কতক আঙুল আর এক্টা হাতের। হাত তুমি এবার মারো এক হাত কলমের টুঁটি চেপে ধরে প্রয়াত স্মৃতির মলিন […]

স্পিক-আপ অথবা জবানের দাম লাখ টাকা~ ইমরান ফিরদাউস

দুনিয়া যখন সর্বৈব অর্থে লেখনদারির মধ্যে উপগত হইতেছে তখন ফরাসি নির্মাতা স্টিফেন দ্যু ফ্রেইত নাজেল হইলেন এক অনির্বচনীয় সিনে-আলেখ্য নিয়ে। আন্তর্জাতিক শিরোনাম স্পিক আপ (২০১৭)/ মূল ফরাসি শিরোনাম A Voix Haute, La Force De La Parole। আজ যখন দুনিয়াবি দেখনদারি (ভিডিও লিংক সহ) লেখনভিত্তিক জবানের কাছে জিম্মি হয়ে উঠতেছে, প্রমিত প্রমাণরূপে লিখিত বক্তব্য মানহানি ও […]

স্বামী বিদেশানন্দ ~ ইমরান ফিরদাউস

পৃথিবী একটা অদ্ভুত দেশ  সকাল থেকে এরকমই   মনে হইতেছিলো বিদেশের   ধন্দ কাটানোর তাড়নায়   ট্রাংককল দিলো এদেশকে   এদেশ তখনও ঘুমে    খুল্লাম খুল্লা উন্নয়নের স্বপ্নে বিভোর  ট্রাংককলের শব্দে স্বপ্নটা স্বপ্না হয়ে   ঝুলে রইলো স্ক্রিনশটের মত   অতঃপর সওয়াল শুনে এদেশ ভাবে   বিদেশের ঘোড়া রোগ হইছে   ঘোড়া রোগ কিভাবে হয় জানেন তো!   আড়াই কদমে হাঁটলেই মানুষ ঘোড়া হয়ে যায়   বিদেশের তাই-ই হইছে।  উন্নয়নের পর্নোগ্রাফিক চশমা চোখে দিয়ে   এদেশ ভাবে এক ইরোটিক বিদেশের কথা   আর বিদেশ সিনেম্যাটিক পর্দার পেছনে   লুকায় লুকায় কান্দে আর ডুকরায় ডুকরায় কয়  আম্মুর কাছে যাবো।।   

আজ কাল পরশুর গল্প ~ ইমরান ফিরদাউস  

বেওয়ারিশ একটা তারিখ এতিম এর মতন তাকায় স্বতঃস্ফূর্ত ক্যালেন্ডারের পানে ক্যালেন্ডারে নাই লাল শুক্রবারের কমতি তারপরও তারিখের নিয়িতিতে জোটে না একটা বিস্বাদ বার এই একক বা দশকের সংখ্যার কৌমার্য  নিয়ে তারিখ এর কাইটা যায় দিন মাস বছর সাতই মার্চ ছাব্বিশে মার্চ ষোলই ডিসেম্বর কত বড় বড় তারিখ কত কত চওড়া তাগো বুকের ছাঁতি বেওয়ারিশ তারিখ ভাবে এ ক্যামন দেশে আইসা পড়লাম শনিবার যায় রবিবার যায় আসে না বন্ধু ভালোবাসে না আমায়। আগামীকাল গতকাল আজকাল তারিখ ভাবে সবাইরে চেনা হয়ে গেছে সব হালা প্রকৃত চুদির ভাই চুইদা কয় স্যরি আপা! **চিত্রকর্ম শিল্পী পটুয়া কামরুল হাসান / শিরোনাম ঋণস্বীকার মানিক ব্যানার্জী

জহির রায়হান: গুমনাম আত্মার সতীর্থ এর সাথে কথোপকথন ~ ইমরান ফিরদাউস

প্রখ্যাত চলচ্চিত্র নির্মাতা জহির রায়হান প্রসঙ্গে সাহিত্যিক ও শিক্ষাবিদ বোরহানউদ্দিন খান জাহাঙ্গীরের সাথে ইমরান ফিরদাউসের আলাপচারিতা উপক্রমণিকা  জহির রায়হান (১৯৩৫-১৯৭২?) বাঙলা দেশের সিনেমার অন্যতম জরুরী নাম। সাংবাদিক, সাহিত্যিক, সংগঠক পরিচিতি ছাপিয়ে যিনি সিনেমা-কারিগর হিসেবে সমধিক পরিচিতি নিয়ে হাজির আছেন বাংলাদেশের রাজনৈতিক-সাংস্কৃতিক ইতিহাসের পরিসরে। সিনেমাকে ব্যবহার করতে শিখেছিলেন অধিকার আদায়ের মাধ্যম হিসেবে। ইমেজের গায়ে ইমেজ গেঁথে […]